অর্থনীতি

শুল্কফাঁকির চেষ্টা করায় কনটেইনার ভর্তি চালান আটক

আমদানির মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে শুল্কফাঁকির চেষ্টা করায় কনটেইনার ভর্তি চালান আটক করেছে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস। শনিবার (২০ নভেম্বর) এ চালান আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন কাস্টমস কর্মকর্তারা।

আমদানির ঘোষণায় বলা হয়েছিল, তৈরি পোশাক কারখানার জন্য ৮ হাজার ৪০০ কেজি কম্বলের কাপড় আসবে। তবে আনার পর বন্দরে কায়িক পরীক্ষায় দেখা গেছে কম্বল, জায়নামাজ, প্রসাধনী সামগ্রী ও খাদ্যদ্রব্যসহ প্রায় ৭৫ প্রকারের পণ্য এসেছে। ১৭ জুলাই এ চালানটি খালাসের জন্য বিল অব অ্যান্ট্রি দাখিল করে মনোনীত সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রত্যয় ইন্টারন্যাশনাল।

এদিকে কাস্টমস কর্মকর্তারা চালানটি নিয়ে গোপন তথ্য থাকায় খালাস প্রক্রিয়া স্থগিত করেন। বন্দরের জেআর ইয়ার্ডে পণ্যবাহী কনটেইনারটি কাস্টম হাউসের অডিট, ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চ (এআইআর) শাখার একটি টিম বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে চালানটি শতভাগ কায়িক পরীক্ষা করেছে।

এ সময় পণ্য বের করার পর, ২৩৮টির মধ্যে প্রায় প্রতিটি প্যাকেজের গায়ে প্রেরক-প্রাপকের নাম, ঠিকানা এবং মোবাইল নম্বর কাপড় দিয়ে সেলাই করা অবস্থায় রয়েছে। কন্টেইনারে প্রায় ১ হাজার ৫৫১ টি কম্বল, ৪৮৩ টি জায়নামাজ, ১২০ কেজি বিভিন্ন ধরনের প্রসাধনী এবং ২০০ কেজি বিভিন্ন প্রকার ইলেকট্রনিক্স সামগ্রীসহ মোট ৭ হাজার ৫৭০ কেজি পণ্য পাওয়া গেছে।

এসব শুল্কায়নযোগ্য পণ্যের আনুমানিক মূল্য ২০ লাখ টাকা এবং শুল্কমুক্ত সুবিধার অপব্যবহার করে আমদানির মাধ্যমে আনুমানিক ১৭ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছিল বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের অডিট, ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চ শাখার কর্মকর্তা মো. সরফুদ্দিন মিয়া। আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মতামত দিন