খেলাধুলা

ম্যারাডোনার বিদায়ের এক বছর

গত বছরের ২৫ নভেম্বর পৃথিবীকে চিরবিদায় জানিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান ফুটবল ঈশ্বর আরমান্দো ডিয়াগো ম্যারাডোনা। তবে ওপারে প্রস্থান করলেও তার আলোকিত উজ্জ্বল ক্যারিয়ার বিশ্ব ফুটবল প্রেমীদের হৃদয় জুড়ে বেঁচে থাকবে চিরকাল। আর্জেন্টাইন সুপারস্টার ম্যারাডোনার নৈপুণ্যে নিজ দেশ আর্জেন্টিনাকে এনে দেন বিশ্বকাপ ট্রফিসহ অগণিত সাফল্য। তাই দেশের মানুষের হৃদয়ে তার স্থান সবার উপরে।

১৯৮৪ সালে ২৪ বছর বয়সের দুর্বার ক্যারিয়ারের টগবগে ফুটবল তারকা দিয়েগো আরমানদো ম্যারাডোনা যোগ দেন দক্ষিণ ইতালির সাদামাটা দল নাপোলিতে। ক্লাব ফুটবলের উজ্জ্বল নক্ষত্র ম্যারাডোনা, তার একক নৈপুণ্যে অখ্যাত নাপোলির ঘরে তুলেন ইউরোপ সেরা চ্যাম্পিয়ন ট্রফি এবং সেই সঙ্গে দুই দুইবার হাত উঁচিয়ে ধরেন ইতালীয় "সিরি আ" ট্রফিও। বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়ে নাপোলি ক্লাবের নাম। নাপোলি ছিল ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনার ক্যারিয়ারের উজ্জ্বলতম অধ্যায়। তিনি নাপোলিকে উজাড় করে দিয়েছেন, সেই সঙ্গে নাপোলিও তাকে চিরদিন মনে রাখার জন্য তার গায়ে জড়ানো ১০ নাম্বার জার্সি কাউকে কখনো দেবেনা বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। 

এছাড়া, তার মৃত্যুর পর নাপোলির "সাম পাওলো" স্টেডিয়ামের নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় "দিয়েগো আরমানদো ম্যারাডোনা স্টেডিয়াম"। তার প্রতি ভালোবাসা কানায় কানায় পূর্ণ ইতালীয় ও নাপোলি বাসীর হৃদয় চিরকাল।

পৃথিবী ছেড়ে ফুটবল ঈশ্বর ম্যারাডোনা আজ এক বছর হলো ওপারে পাড়ি জমালেও যতদিন ফুটবল বেঁচে থাকবে, সেই সঙ্গে তার উজ্জ্বলতম ক্যারিয়ারের ঐশ্বরিক ফুটবলের জন্য ইতিহাসে সেরাদের সেরা হয়ে থাকবেন তিনি শতাব্দীর পর শতাব্দী। কারণ কীর্তিমানের সৃষ্টির কোন মৃত্যু নেই।

মতামত দিন