বাংলাদেশ

সাকরাইন পালনে চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি

ছয় ঋতুর দেশে পৌষ মাসের শেষ দিনটিকে প্রতিবছর ঐতিহ্যবাহী উৎসব সাকরাইন হিসেবে পালন করে পুরান ঢাকার বাসিন্দারা। পুরান ঢাকায় ১৪ জানুয়ারি পালিত হয় এই উৎসব। তবে শাঁখারী বাজারের আদি হিন্দু পরিবারগুলো একদিন পরে অর্থাৎ ১৫ জানুয়ারিতে এ উৎসব পালন করে। বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্যে ছোটবড় সবাই মেতে উঠে এ উৎসবে।
 
সরেজমিনে দেখা গেছে, পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় সাকরাইনকে সামনে রেখে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। পুরান ঢাকার শাঁখারীবাজার, তাঁতিবাজার, লক্ষ্মীবাজার, সূত্রাপুর, গেণ্ডারিয়া, লালবাগ ও এর আশপাশের এলাকাগুলো সাকরাইন উৎসব পালন করতে প্রস্তুত করা হচ্ছে। বেশির ভাগ বাসার ছাদে সাউন্ড-সিস্টেম, আলোকসজ্জা ও লাইটিং করে সাজানো হচ্ছে।
 
শাঁখারী বাজারের ঘুড়ি ও আতসবাজির দোকানগুলোতে বেড়েছে ক্রেতাদের ভিড়। শাঁখারী বাজারের দোকানিরা জানান, বিভিন্ন ধরনের আঁকার আকৃতির ঘুড়িগুলো এখানে তৈরি হয় ও এদের নামও বেশ চমৎকার যেমন চোখদার, পানদার, বলদার, দাবাদার, লেজওয়ালা, পতঙ্গ ইত্যাদি নামের ঘুড়ি। সাধারণ ঘুড়িগুলোর দাম ৫ থেকে ২৫ টাকার মধ্যে, হরেক রকমের ডিজাইন করা ঘুড়িগুলোর দাম ১৫০ টাকা থেকে ৬০০ টাকার বেশি হয়।

এ ছাড়া দোকানগুলোতে ভারত ও চায়নার ঘুড়িও পাওয়া যায়। তারা এই সাকরাইন উৎসব চলাকালীন সময়েই ঘুড়িগুলো নিজেরাই প্রয়োজনীয় উপকরণ দিয়ে তৈরি ও আমদানি করে থাকে। তবে এবারের ইংরেজি নববর্ষের অনুষ্ঠানে ফানুস ও আতসবাজিতে বিভিন্ন স্থানে দুর্ঘটনা ঘটায় সরাসরি ফানুস ও আতসবাজি বিক্রি হচ্ছে না শাঁখারীবাজারে। তবে গোপনে চলছে বিকিকিনি।

এবারের সাকরাইনে ফানুস ওড়ানো ও আতশবাজি ফুটানোর কোনো বিধিনিষেধ আছে কিনা জানতে চাইলে সূত্রাপুর থানার ওসি মইনুল ইসলাম বলেন, এটা মূলত পুলিশ হেডকোয়ার্টার থেকে ডিএমপি কমিশনার নির্দেশনা দিয়ে থাকেন। প্রতিবারের মতো ফানুস ওড়ানো এবারও নিষিদ্ধ তবুও বিচ্ছিন্নভাবে কিছু যায়গায় উড়ানো হয় আমরা এটা প্রতিরোধের চেষ্টা করব। এবার যেহেতু ওমিক্রন সতর্কতা আছে আমরা সেভাবেই পরিচালনা করছি। সাকরাইনে যাতে কোনো ধরনের জনসমাগম না ঘটে সে দিকে আমরা লক্ষ রাখব।

মতামত দিন