বাংলাদেশ

আন্তর্দেশীয় অস্ত্র কারবারি চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেপ্তার: ডিবি

রাজধানীর দারুস সালাম এলাকা থেকে গতকাল বুধবার রাতে আন্তর্দেশীয় অস্ত্র ব্যবসায়ী চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের কাছ থেকে ৮টি বিদেশি পিস্তল, ৮টি গুলি, ১৬টি ম্যাগাজিন ও ১টি প্রাইভেট কার উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানায় ডিবি।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিবির প্রধান এ কে এম হাফিজ আক্তার।


গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন আকুল হোসেন, ইলিয়াস হোসেন, আবুল আজিম, ফারুক হোসেন ও ফজলুর রহমান।

ডিবি বলছে, ঢাকার ভাষানটেকে একজন ঠিকাদারকে গুলি করার ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্র ও সম্প্রতি উদ্ধার হওয়া কয়েকটি অস্ত্রের উৎস অনুসন্ধানে নেমে তারা এ চক্রের সন্ধান পায়।

ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার হাফিজ আক্তার বলেন, ভারতের তৈরি এসব অস্ত্র সীমান্তবর্তী জেলা যশোরের বেনাপোল হয়ে দেশে প্রবেশ করছে। পরে তা খুলনা, বাগেরহাট, ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকার সন্ত্রাসীদের হাতে চলে যাচ্ছে।

হাফিজ আক্তার বলেন, গ্রেপ্তার আকুল হোসেন এই চক্রের প্রধান। তিনি ২০১৪ সাল থেকে অস্ত্র ব্যবসা ও স্বর্ণ চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত। এ ছাড়া এ চক্র তক্ষক বেচাকেনা, সীমান্তখুঁটি, সাপের বিষ, প্রত্নতাত্ত্বিক মূর্তি, ইয়াবা, আইস ইত্যাদির কারবার করে আসছিল। আকুল হোসেনের বিরুদ্ধে যশোরের বিভিন্ন থানায় আটটি মামলা রয়েছে। গ্রেপ্তার অন্য ব্যক্তিরা যশোর জেলার বেনাপোল ও শার্শার বাসিন্দা।

ডিবির পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আকুল ২০০টি অস্ত্র বিক্রির কথা স্বীকার করেছেন। তাঁরা প্রতিটি অস্ত্র ২৮–৫০ হাজার টাকায় কিনতেন। বিক্রি করতেন ৮০–৯০ হাজার টাকায়।


এক প্রশ্নের জবাবে হাফিজ আক্তার বলেন, অস্ত্রগুলো চুরি, ছিনতাই, ভূমি দখল, আধিপত্য বিস্তারের মতো অপরাধকর্মে ব্যবহৃত হয়ে আসছিল। এ ছাড়া আগামী নির্বাচনকে টার্গেট করে কোনো গোষ্ঠী এসব অস্ত্র সংগ্রহ করছে কি না, তা তাঁরা তদন্ত করে দেখছেন।

অভিযানের তদারক কর্মকর্তা ডিবির গুলশান বিভাগের উপকমিশনার মশিউর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, আন্তর্জাতিক অস্ত্র কারবারিরা অস্ত্র ও গুলি সঙ্গে নিয়ে তা বিক্রির উদ্দেশ্যে প্রাইভেট কারে গাবতলী হয়ে ঢাকায় ঢুকছে বলে তাঁরা গোপন তথ্য পান। এ তথ্যের ভিত্তিতেই তাঁরা অভিযান চালান।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দারুস সালাম থানায় অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে বলে জানায় ডিবি। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করবে ডিবি।

মতামত দিন