অন্যান্য

জুসের চেয়ে পুরো ফল খাওয়ার উপকারীতা বেশি

আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় অন্তত একটি মৌসুমি ফল রাখা দরকারি। শাকসবজির পাশাপাশি নিয়মিত ফল খেলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। বেশির ভাগ মা -বাবার দাবি তাদের বাচ্চারা ফল খেতে চায় না বলে জুস বানিয়ে দেন। ধারণা জুস থেকে একটি ফলের সমপরিমাণ পুষ্টির চাহিদা পূরণ হয়। 

তবে ফল থেকে শুধু রসটুকু বের করে নিলে এর ভিটামিন, ফাইবার ও পটাশিয়াম নষ্ট হয়ে যায়। একটি ফলে যে খাদ্য আঁশ থাকে জুস তৈরির সময় তা ভেঙে যায়। ফলে, জুসে খাদ্য আঁশের পরিমাণ কম থাকে।

এ ছাড়া ফলের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স অনেক কম। কোনো খাবারের শ্বেতসার শর্করা কত দ্রুত রক্তে চিনির পরিমাণ বাড়ায় তার পরিমাপ হলো গ্লাইসেমিক ইনডেক্স। ফলের জুসে উচ্চগ্লাইসেমিক ইনডেক্সের কারণে দ্রুত শরীরে চলে যায়। তাই স্বাভাবিকভাবেই ফলের জুসের চেয়ে পুরো ফল খাওয়া বেশি ভালো।

জুস তৈরিতে বেশির ভাগ সময় বাড়তি চিনি ব্যবহার করা হয়, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এটি রক্তে শর্করার পরিমাণ বাড়ায়। এতে থাকে ফ্রুকটোজ, গ্লুকোজ ও লেভ্যুলোজ। ফলের খোসাসহ খেলে অনেক ফাইবার বা আঁশ পাওয়া যাবে; যা কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে।

ছোট থেকে শিশুদের ফল খাওয়ানোর অভ্যাস করতে হবে। মনে রাখতে হবে ছোটবেলায় জুস দিলে শিশু বড় হয়ে আর ফল খেতে চায় না। একান্তই যদি ফলের জুস দিতে হয়, তাহলে বাড়িতে বানানো ফলের জুসে প্রাধান্য দিন।
ব্লেন্ডারে না করে হাতে কচলে বা ম্যানুয়ালি জুস বানানো বেশি উপকারী। ঘরে জুস বানালে কম পানি দিন, তাতে ফলের ন্যাচারাল স্বাদ বজায় থাকবে। এ ছাড়া পাল্পসহ জুস করুন অর্থাৎ না ছেঁকে, তাহলে কিছুটা ফাইবার পাওয়া যাবে।

সবসময় দেশি ও মৌসুমি ফল খাওয়ার চেষ্টা করুন। মৌসুমি ফলের পুষ্টি শরীরের জন্য অনেক উপকারী। নানা রঙের ফল আমাদের নানা রকম পুষ্টির জোগান দেয়। তাই সুস্থ থাকতে ফলের কোনো বিকল্প নেই। প্রতিদিন ফল খান এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে সুস্থ থাকুন।

মতামত দিন