মিডিয়া কর্নার

ছেলেকে জেলে দেখে ভেঙ্গে পড়লেন শাহরুখ-গৌরী

মুম্বাইয়ের ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে শুনানির পর গতকাল ছেলে আরিয়ান খান জামিন না পাওয়ায় কান্নায় ভেঙে পড়েছেন বিশিষ্ট ফ্যাশন ডিজাইনার গৌরী খান।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর, মাদক মামলায় গতকাল শুক্রবার জামিন নামঞ্জুর করে বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খান ও ডিজাইনার গৌরী খানের ছেলে আরিয়ান খানসহ অভিযুক্তদের আর্থার রোডের জেলে প্রেরণের আদেশ দেন আদালত। আর মুনমুন ধমেচাসহ অপর নারীকে পাঠানো হয় বাইকুল্লা নারী কারাগারে।

একটি ভিডিও অন্তর্জালে ভাইরাল হয়েছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে গাড়িতে বসে কাঁদছেন গৌরী খান। পুলিশের গাড়িতে করে যখন আরিয়ান খানকে নেওয়া হচ্ছে, তখন শান্ত দেখাচ্ছে এ স্টার কিডকে। কিন্তু গৌরী খান গাড়ির পেছনের আসনে বসে হাত দিয়ে মুখ ঢেকে আছেন। এ সময় অশ্রুসিক্ত দেখা যায় তাঁকে।

বলিউড বাবলের খবর, আরিয়ান খান উচ্চ আদালতে জামিন আবেদন করবেন। যদি হাইকোর্ট এ স্টার কিডের জামিন মঞ্জুর করেন, তবে তাঁকে অন্তত আরও দুই রাত জেলে থাকতে হবে। আজ শনিবার ও রোববার আদালত বন্ধ থাকায় সোমবার (১১ অক্টোবর) উচ্চ আদালতে জামিন শুনানি হতে পারে।

দুই দফা রিমান্ড শেষে ৭ অক্টোবর আরিয়ান খানকে ১৪ দিনের জন্য বিচারিক হেফাজতে পাঠান মুম্বাইয়ের আদালত। সেদিনই অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদন করেন আরিয়ানের আইনজীবী সতীশ মানশিন্ডে। ৬ অক্টোবর মাদককাণ্ডে গ্রেপ্তার আরিয়ান খানসহ অভিযুক্তদের মুঠোফোন ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য মুম্বাইয়ের গান্ধী নগরের একটি পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে ভারতের নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি) দাবি করে, আরিয়ানের হোয়াটসঅ্যাপ আলাপচারিতায় ‘অবাক করার মতো এবং অপরাধমূলক’ প্রমাণাদি পাওয়া গেছে। আন্তর্জাতিক মাদক পাচার চক্রের সঙ্গেও সংযোগের অভিযোগ তাদের।

৪ অক্টোবর আরিয়ান খানকে ফের জামিন না দিয়ে ৭ অক্টোবর পর্যন্ত ভারতের নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) হেফাজতে রাখার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেন আদালত। মাদককাণ্ডে দীর্ঘ ১৬ ঘণ্টা জেরার পর ৩ অক্টোবর বিকেলে আরিয়ান খানকে গ্রেপ্তার দেখায় এনসিবি। সেদিন সন্ধ্যায় মেডিকেল চেকআপের পর আদালতে তোলা হলে ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে তাঁকে এক দিনের হেফাজতে রাখার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়।

মুম্বাইয়ের উপকূলে একটি প্রমোদতরীতে চলমান মাদক পার্টি থেকে ২ অক্টোবর রাতে আরিয়ান খানসহ মোট আট জনকে আটক করে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। যাত্রীর ছদ্মবেশে কর্ডেলিয়া নামে বিলাসবহুল ওই প্রমোদতরীতে চেপে বসেছিলেন এনসিবির গোয়েন্দারা। এ মামলায় এ পর্যন্ত ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে এনসিবি

মতামত দিন