সোমবার ২০ জানুয়ারী ২০২০ | ০৭:২০:০৩

মোহনা সংবাদ ২৪ ডট কম

দাপট দেখাবেন না, ক্ষমতা চিরদিন থাকে না: ওবায়দুল কাদের

It Admin Mohona, Mohona Songbad | আপডেট: ১১:১২, নভেম্বর ২৭, ২০১৯

দলীয় নেতাকর্মীদের ক্ষমতার দাপট না দেখানোর আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আওয়ামী লীগ মানে ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে সৃষ্টির স্লোগান। দুঃসসময় মোকাবেলার নাম আওয়ামী লীগ। সব দুঃসসময় ও দুর্যোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে আওয়ামী লীগ আজ ক্ষমতায়।

তিনি বলেন, আজ সুসময় আছে। এই সুসময় চিরদিন নাও থাকতে পারে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টায় রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ সব কথা বলেন।

নেতাকর্মীদের সতর্ক করে আরও তিনি বলেন, মনে রাখবেন ক্ষমতা আছে, কিন্তু তা ক্ষমতা চিরদিন নাও থাকতে পারে। ক্ষমতা চিরদিন থাকে না। ক্ষমতা এক সময় চলে যাবে। ক্ষমতার দাপট কেউ দেখাবেন না। বিনয়ী থাকবেন। আমাদের নেত্রী বলেছেন সাধারণ জীবনযাপন করতে হবে। অনেক স্বপ্ন দেখতে হবে। অনেক স্বপ্ন দেখাতেও হবে।

সম্মেলন উদ্বোধন করেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী রমেশ চন্দ্র সেন। জেলা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি রেজাউল করিম রাজু ও মহানগর সভাপতি সাফিউর রহমান সফি। সম্মেলন উপস্থাপনা করেন মহানগর সেক্রেটারি তুষার কান্তি মণ্ডল।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য চৌধুরী খালেকুজ্জামান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ এইচএন আশিকুর রহমান এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল, অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক টিপু মুনশি, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আখতার, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দুঃসময়ের আওয়ামী লীগ নেতাদের মূল্যায়ন না করে বসন্তের কোকিলদের হাতে নেতৃত্ব দেয়া যাবে না। মাদকসেবী, দুর্নীতিবাজ, টেন্ডারবাজ চাঁদাবাজদের নেতৃত্বকে না বলুন। দীর্ঘদিন রংপুরে কমিটি না হওয়ার কারণে সেশনজটে আটকে গেছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব। ত্যাগী নেতাদের কোণঠাসা করে আত্মীয়দের নেতা বানাবেন না। বিশুদ্ধ রক্ত দিয়ে দল পরিচালনা করুন। দলের নেতৃত্ব তাদের হাতে তুলে দিন। দূষিত রক্তদের পরিহার করুন।

তিনি বলেন, এক সময় রংপুরের মানুষ মঙ্গাকবলিত ছিল। প্রধানমন্ত্রী সেই মঙ্গাকে যাদুঘরে পাঠিয়েছেন। রংপুরকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ব্যাপক উন্নয়নের পরিকল্পনা রয়েছে। বগুড়া থেকে চারলেনের কাজ শুরু হয়েছে। রংপুর থেকে বুড়িমারী বাংলাবান্ধা সড়ক করা হবে। গোটা উত্তরাঞ্চলের সমস্ত মহাসড়ক চারলেনের আওতায় আনা হবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, রংপুর জেলার ৯৪ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। দ্রুত শতভাগ বিদ্যুৎ নিশ্চিত করা হবে।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, বিশ্বের প্রধানমন্ত্রীদের মধ্যে এক নম্বরে রয়েছেন শেখ হাসিনা। বিশ্বের মহিলা নেতাদের তালিকাও শীর্ষে রয়েছেন তিনি। তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়বে। সেই যাত্রায় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।

দীর্ঘদিন পর অবশেষে রংপুর জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে হাজার হাজার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা যোগ দিয়েছেন। ফলে নেতাকর্মীদের ঢল নেমেছে মঙ্গলবার রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে আয়োজিত এ সম্মেলনে।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এতে যোগদেন রংপুর নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ড ও জেলার আট উপজেলার আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ-সংগঠনের নেতকর্মীরা।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ ১৩ বছর পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই সম্মেলন। ২০০৭ সালে সাফিয়ার রহমান সাফিকে সভাপতি ও বাবু তুষার কান্তি মণ্ডলকে সাধারণ সম্পাদক করে রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়।

১৯৯৭ সালে রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠন হয়। ২০০৬ সালে রংপুর জেলা সম্মেলন আহ্বান করা হলে দলের দুই গ্রুপের বিরোধের জেরে তা পণ্ড হয়ে যায়। পরে আহ্বায়ক কমিটি দ্বারা জেলা আওয়ামী লীগ পরিচালিত হয়।

২০০৯ সালে মরহুম আবুল মনসুর আহমেদকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজুকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা আওয়ামী লীগের ৭১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন করে কেন্দ্রীয় কমিটি। পরে আবুল মনসুর আহমেদের মৃত্যুর পর ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন মমতাজ উদ্দিন আহমেদ।



অ্যাড বিভাগ

শিরোনাম »
উন্নত রাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ - কৃষিমন্ত্রী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সাংবাদিকদের পরিচয়পত্রের জন্য আবেদনের শেষ তারিখ ২৭ জানুয়ারি মুজিব শতবর্ষ লোগো নির্দেশিকা প্রকাশিত এ বছর থেকে ২ মার্চ জাতীয় ভোটার দিবস নিরাপত্তার ঝুঁকি মনে হলে যে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারবে দিল্লি পুলিশ বাংলাদেশকে ধন্যবাদ রুশোর, দর্শকদের প্রশংসায় ইরফান চেহারা শনাক্তকরণ প্রযুক্তি নিষিদ্ধের কথা ভাবছে ইইউ কুষ্টিয়ায় কোনো মাদকবিক্রেতা-সন্ত্রাসী থাকতে দেবেন না এসপি সির সফর, চীনা মুকুট ও রাখাইন রত্ন বুঝতে পারছি না ভারত কেন এটা করল, এর প্রয়োজন ছিল না সিটি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করায় অনশন ভাঙলেন আন্দোলনরত ঢাবি শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশের ছেলেমেয়েরা সব জায়গায় ভালো করে ইআরপি সফটওয়্যার প্রতিযোগিতায় দেশীয় প্রিজম র‌্যানকন মোটরবাইকস জাতীয় অ্যাথলেটিক্সে ইবির ৩ শিক্ষার্থীর স্বর্ণপদক জয় বিশ্ব ইজতেমায় তাইজুল-শুভ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে বাংলাদেশের সগৌরব উপস্থিতি থাকবে অর্থমন্ত্রী জিয়া, এরশাদ ও খালেদা জিয়ারা ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করেছে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়ন কাজে পর্যটনকে গুরুত্ব দিতে হবে পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর সিটি নির্বাচন সহ সব ধরনের নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সরকার বদ্ধপরিকর স্থানীয় সরকার মন্ত্রী জ্ঞান চর্চা না করলে তা নষ্ট হয়ে যায় স্থপতি ইয়াফেস ওসমান সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীদের শোক হারিয়ে যাওয়া ইতিহাস ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে কাজ করছে সরকার নৌপরিবহন ইআরপি সফটওয়্যার প্রতিযোগিতায় দেশীয় প্রিজম র‌্যানকন মোটরবাইকস জামিনে মুক্তি পেয়েই মসজিদের বিক্ষোভে চন্দ্রশেখর ইরানের আরেক কমান্ডারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিল যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধুর আদর্শে চলতে ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় বাংলাদেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড কম: পররাষ্ট্রমন্ত্রী শুদ্ধি অভিযানের গতি ও পরিণতি ঝুঁকি বাড়াচ্ছে ঘন কুয়াশা পাকিস্তান যাবেন না মুশফিক, নিশ্চিত করল বিসিবি