শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ২০:৩৩:০০

মোহনা সংবাদ ২৪ ডট কম

স্বাস্থ্যবিধি শিথিল হলেই বিপদ

It Admin Mohona, Mohona Songbad | আপডেট: ০৭:২৯, জুলাই ১৫, ২০২১

করোনাভাইরাসের ভয়াবহ সংক্রমণের মধ্যেই আজ থেকে সারা দেশে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আট দিনের জন্য খুলে যাচ্ছে প্রায় সবকিছু। পবিত্র ঈদুল-আজহাকে সামনে রেখে জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে এ সিদ্ধান্ত। টানা ১৭ দিন বন্ধ থাকার পর চালু হচ্ছে গণপরিবহণ-বাস, লঞ্চ ও বিমান।

আগামীকাল থেকে চলবে ট্রেন। খুলছে শপিংমল, মার্কেট ও দোকানপাট। বসছে কুরবানি পশুর হাটও।

এ সময়ে স্বাস্থ্যবিধি ভাঙলে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে। সংক্রমণ ও মৃত্যু আরও কয়েক গুণ বেড়ে যেতে পারে-এমন আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের। তাদের মতে, কুরবানি ঈদের নামাজ আদায়, পশুর হাট ও গণপরিবহণে চলাচলে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

কেননা, আমাদের চারপাশে করোনা ঘোরাঘুরি করছে। কেউ অসতর্ক হলেই তিনি আক্রান্ত হয়ে পড়বে। এজন্য বাইরে চলাচলের সময় মুখে মাস্ক পরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করতে হবে। একটু পরপর সাবান বা জীবাণুনাশক দিয়ে হাত ধুতে হবে। বয়স্ক ও অসুস্থদের অবশ্যই জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে জনসচেতনতার পাশাপাশি কর্তৃপক্ষকে কঠোর হওয়ার পরমর্শ দেন তারা।

এমনকি সরকারের পক্ষ থেকেও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করলে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে-এমন শঙ্কাও প্রকাশ করা হয়েছে। বুধবার ভার্চুয়াল বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. মো. রোবেদ আমিন বলেছেন, চলতি জুলাই করোনার জন্য অত্যন্ত কঠিন মাস।

এ অবস্থায় স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীন হলে দেশে করোনা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে। তিনি বলেন, জুনে ১ লাখ ১২ হাজার ৭১৮ জন রোগী শনাক্ত হয়েছিল, আর জুলাইয়ের ১৪ দিনে আমরা এত রোগী পেয়ে গেছি। এই মাসের আরও ১৬ দিন বাকি আছে। যেহেতু সংক্রমণের মাত্রা এখন অনেক বৃদ্ধি পাচ্ছে, স্বাস্থ্যবিধি ও প্রতিরোধ ব্যবস্থা যদি না নেওয়া হয়, তাহলে দুই সপ্তাহ টানা এভাবে চলতে পারে। মৃত্যু তিন সপ্তাহ পর্যন্ত এভাবে চলতে পারে।

মঙ্গলবার চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আট দিনের জন্য শিথিল করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ আদেশ জারি করে। সেখানে বলা হয়, ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহণ চলাচল, দোকান-শপিংমল খুলে দেওয়াসহ সব কার্যক্রম চলবে। তবে ঈদের একদিন পর ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ফের ১৪ দিনের জন্য শুরু হবে কঠোর বিধিনিষেধ, যা চলবে ৫ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত।

জানতে চাইলে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও ইউজিসি (ইউনিভার্সিটি গ্রান্ডস কমিশন) অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, তরতর করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এ অবস্থায় বিধিনিষেধ শিথিল করায় ঝুঁকি বেড়ে গেছে। কিন্তু সরকার জীবন ও জীবিকার প্রয়োজনে এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে বাধ্য হয়েছে। অনেক মানুষ বাসায় থাকতে হাঁপিয়ে উঠেছেন এবং অনেকে অর্থনৈতিকভাবে খুব কষ্টে পড়ে গেছেন। তাদের জন্য কিছুটা হলেও সুবিধা বয়ে আনবে। তবে এ সময়ে যে যেখানে যাক, তাকে মাস্ক পরতে হবে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং কিছুক্ষণ পরপর হাত ধুতে হবে। পাশাপাশি সবাইকে টিকা নেওয়ার ব্যাপারে প্রচেষ্টা চালাতে হবে।

তিনি বলেন, কুরবানি উপলক্ষ্যে সারা দেশে পশুর হাটও বসছে। এসব হাটেও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে পশু রাখা, মাস্ক পরা এবং কিছুক্ষণ পরপর হাত ধোয়ার চর্চা রাখতে হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাকে গণপরিবহণ, পশুর হাট, দোকানপাট ও শপিংমলে স্বাস্থ্য নিশ্চিতে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। না হলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে। সেটা হলে পরে আরও কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা ছাড়া সরকারের আর কোনো বিকল্প থাকবে না।

এ প্রসঙ্গে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ড. মুসতাক হোসেন যুগান্তরকে বলেন, করোনা সংক্রমণের এখনো ঊর্ধ্বগতি চলছে। ভয়ংকর অবস্থায় রয়েছে আমাদের দেশ। আমাদের চারপাশে করোনা ঘুরছে। এ অবস্থায় জরুরি প্রয়োজনে কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এ সময় বয়স্ক ও ডায়বেটিসসহ নানা রোগে আক্রান্তদের ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। পাশাপাশি অন্যদেরও বাইরে সতর্কভাবে চলতে হবে। কেননা, তারা বাইরে থেকে সংক্রমিত হয়ে বাসায় এলে অসুস্থরাও আক্রান্ত হতে পারেন। এজন্য সব সময় মাস্ক পরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করতে হবে। কিছুক্ষণ পর পর জীবাণুনাশক দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ঈদের চলাচল, শপিংমল ও মার্কেট, বাস, ট্রেন, লঞ্চ এবং পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা না গেলে করোনা সংক্রমণ কয়েক গুণ বেড়ে যাবে। ঈদ পরবর্তী ২ থেকে ৩ সপ্তাহের মধ্যে পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করবে।

বাসের স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েতুল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, করোনা সংক্রমের ঝুঁকি এড়াতে বাস মালিকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরিবহণ মালিকরা দুই সিটে একজন যাত্রী বহন করবে, সবার মাস্ক পরা নিশ্চিত করবে এবং স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করবে।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন, প্রায় ১৮ দিন পর আগামীকাল (আজ) ঢাকাসহ সারা দেশের দোকান ও শপিংমল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত দিয়েছে সরকার। দীর্ঘদিন পর দোকান ও মার্কেট খোলায় প্রথম দিন পরিষ্কার করতে সময় যাবে। এরপর ৩ দিন দোকানপাট কিছুটা বিক্রি হবে। আর ১৯ ও ২০ জুলাই সবাই গরু কিনতে পশুর হাটে ব্যস্ত থাকবে। কুরবানির ঈদে এমনিতে দোকানপাটের বিক্রি কম হয়, তারপর এ কয়েকদিনে তেমন কোনো বিক্রিও হবে না।

তিনি বলেন, এরপরও সরকার এ সময় দোকানপাট ও শপিংমল খুলে দিয়েছে, যাদের প্রয়োজন তারা খোলা রাখবে। আমাদের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে ব্যবসা পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছি। এরপরও কেউ যদি সেসব না মানে, তার খেসারত সে দেবে। ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট খুবই বিপজ্জনক, সরকার যেভাবে সচেতন করছে এরপর আর কিছু বলার থাকে না।

তিনি আরও বলেন, দোকানের কর্মচারী যারা গ্রামে চলে গেছেন, তাদের এ সময় ফিরিয়ে না আনতে অনুরোধ করা হয়েছে। কেননা, এ অল্প সময়ে তাদের ফিরিয়ে আনলে আসা-যাওয়াতে অনেকে সংক্রমিত হবেন। করোনার বর্তমান অবস্থা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। সবার কাছে বিষয়টি পরিস্কার। সরকারের নির্দেশনা মেনে চলার ব্যাপারে আমাদের কোনো ভিন্নমত নেই।

লঞ্চের স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে নৌপরিবহণমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বুধবার সাংবাদিকদের বলেছেন, লঞ্চে চলাচলে মাস্ক বাধ্যতামূলক। এটা নিশ্চিত করতে কঠোর থাকবে মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে নিশ্চিত করা হবে। এসব বিধিবিধান বাস্তবায়নে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। বিধিনিষেধ না মানলে জেল ও জরিমানা প্রদান করা হবে। প্রয়োজনে লঞ্চ মালিকদেরও শাস্তির আওতায় আনা হবে।

মঙ্গলবার পশুর হাটের স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত এক ভার্চুয়াল আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় বলা হয়, আসন্ন কুরবানির ঈতে পশুর হাট বসাতে কোনো বাধা নেই। তবে করোনা মহামারির কারণে ক্রেতা-বিক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি নির্দেশনাগুলো কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

সমন্বয় সভায় সভাপতির বক্তৃতায় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, সরকার চায়, দেশবাসী যেন হাটে না গিয়ে অনলাইনভিত্তিক ডিজিটাল পশুহাট থেকে পশু কেনেন। কেননা, এ ব্যাপারে মানুষ সতর্ক হলে করোনা সংক্রমণ কম হবে। যেটা দেশের করোনা পরিস্থিতির উন্নয়নে বড় ভূমিকা পালন করবে।

তিনি বলেন, মুসলিমদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব ঈদুল-আজহা। এর সঙ্গে মানুষের আবেগ-অনুভূতি জড়িত। তাই বিভিন্ন প্রতিকূলতা, দুর্যোগ-দুর্বিপাকেও এগুলোকে পরিহার করা সম্ভব হয় না। গত বছর করোনা মহামারির মধ্যেও পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এবারও করোনার প্রাদুর্ভাব বেশি থাকা সত্ত্বেও সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনায় নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

পশুর হাটের বিধিনিষেধ : সারা দেশের কুরবানি পশুর হাটগুলোয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। ক্রেতাদের যাতে মুখোমুখি হতে না হয়, এজন্য হাটগুলোয় ক্রেতাদের একমুখী চলা নিশ্চিত করতে হবে। প্রবেশ ও প্রস্থানের পৃথক ব্যবস্থা থাকবে। হাটের প্রবেশমুখে ক্রেতা-বিক্রেতাদের শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপের ব্যবস্থা থাকবে। হাত ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত বেসিন, পানি ও জীবাণুনাশক সাবান নিশ্চিত করতে হবে। এসব তদারকির জন্য সিটি করপোরেশন, জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দায়িত্ব পালন করবে। আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইজারাদারদের ত্রুটি থাকলে জরিমানাসহ হাটের ইজারা বাতিল করার শর্তারোপ করছে দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাগুলো।

ডিজিটাল পশুহাট : করোনার সংক্রমণ বিবেচনায় এবার ডিজিটাল পশুর হাটে পশু কিনতে আগ্রহী করছে সরকার। রাজধানীবাসীর জন্য ‘ডিজিটাল হাট’ চালু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। সেখানে ইতোমধ্যে কয়েক হাজার পশু বিক্রি হয়েছে। এছাড়া মঙ্গলবার সারা দেশের মানুষের জন্য দেশব্যাপী ডিজিটাল পশুর হাটের উদ্বোধন করেছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বলেছেন, তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বিপ্লবের মাধ্যমে বিশ্বে বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। আজকের এ ডিজিটাল হাটের মাধ্যমে একদিকে কুরবানির পশু বিক্রেতারা যেমন ন্যায্যমূল্য পাবেন, তেমনই ক্রেতারা পাবেন সঠিক পশু কেনার নিশ্চয়তা। বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছে বলে হাটে না গিয়ে ঘরে বসে কুরবানির পশু কেনার এ সুবিধা আজকে আমরা দিতে পারছি। আমরা যদি ডিজিটাল উপায়ে সক্ষম না হতাম, তাহলে এই হাটের মাধ্যমে মানুষকে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া অনেক কঠিন হয়ে যেত।



অ্যাড বিভাগ

শিরোনাম »
২৩ দফা নির্দেশনা দিয়ে কঠোর লকডাউন শুরু নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান কাদেরের পৃথক জলাভূমি মন্ত্রণালয় গঠন করতে হাইকোর্টের নির্দেশ দুই দিনে ঢাকা ছেড়েছেন ১৭ লাখ সিম ব্যবহারকারী যে কারণে লিটনের বদলে কিপিং করলেন সোহান স্ত্রীর সমর্থনে সেঞ্চুরি পেলেন লিটন দক্ষিণ আফ্রিকায় এক মাসে ২৮ বাংলাদেশির মৃত্যু দক্ষিণ কোরিয়ায় ২০২২ সালে ৫.১ শতাংশ বেতন বৃদ্ধি ভোগান্তিতে দিশেহারা সাধারণ রোগী ইউরো ফাইনাল বাতিল হতে বসেছিল ৭.৫ ওভারে ১৩ রানে ৫ উইকেট নিলেন সাকিব পাকিস্তান সীমান্ত দখলের পর ভিডিওতে যা বলল তালেবান হিজবুল্লাহর কাছে দেড় লাখ ক্ষেপণাস্ত্র উৎকণ্ঠায় ইসরাইল ৯ তলা থেকে স্বামীর হাত ফসকে পড়ে গেলেন তরুণী মুফতি মাহমুদ হাসানকে নিয়ে ভয়ংকর তথ্য দিল র‌্যাব বাংলাদেশের বিশাল জয়ে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন যুবলীগের পক্ষ থেকে দুস্থদের ঈদ উপহার বাংলাদেশের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ে ওয়ানডে স্কোয়াড ঘোষণা ইরানে বিয়েতে উৎসাহিত করতে ইসলামিক ডেটিং অ্যাপ করোনায় রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান হাবীবের ইন্তেকাল জ্যাকব জুমার মুক্তি আন্দোলনে গুলিতে নিহত বেড়ে ৭২ আফগানিস্তান নিয়ে যা বললেন ইরানের সেনাপ্রধান টিকা নিবন্ধনের বয়সসীমা ১৮ করার সুপারিশ স্বাস্থ্যবিধি শিথিল হলেই বিপদ ম্যারাডোনার সঙ্গে মেসির তুলনা যা বললেন ম্যারাডোনার ছেলে মুশফিকের হঠাৎ সিদ্ধান্তে যা বলল বিসিবি হোয়াইটওয়াশ হওয়া পাকিস্তানের জন্য লজ্জাজনক করোনা আক্রান্ত মুশফিকের মা-বাবা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টাইগারদের চ্যালেঞ্জিং স্কোর